বুধবার, ফেব্রুয়ারি ১

‘খাঁচার কথা’ নিয়ে

0
khanchar kotha

খাঁচার কথা ।। ইমতিয়াজ হাসান শাহরিয়ার ।। ধরণ : কবিতা ।। প্রচ্ছদ : রাজীব দত্ত ।। প্রকাশক : বুকিশ ।। পরিবেশক : উড়কি ।। মূল্য : ১২০ টাকা

খাঁচার ভেতর খাঁচার বসবাস, খাঁচায় খাঁচায় সহবাস, খাঁচা থেকে খাঁচার জন্ম— এই যে ‘খাঁচা’ এ এক অসাধারণ রহস্য, যার পুরোটাই প্রাকৃতিক। এই যে ব্রহ্মাণ্ড নামক খাঁচা, এর বাইরে কী আছে? এর ভেতরেই বা আর কী কী আছে, কেমন তার জীবনধারা? আদৌ আছে কি না? থাকুক বা না-থাকুক, এই যে অন্ধকারকে জানতে চাওয়া, জানার চেষ্টা করা, সিঁড়ির এক একটা ধাপ নির্মাণ করে সময়ের সাক্ষ্য রেখে যাওয়া বা প্রকৃতিসৃষ্ট যে সীমানায় আমরা আটকা পড়ে আছি অথবা পেয়েছি সেই সীমানা অতিক্রমের চেষ্টা, এই চেষ্টাই তো রয়েছে আমাদের মানব ইতিহাসের পুরোটা জুড়ে। যার ফলশ্রুতিতে আদিম মানবের গুহাজীবন থেকে আজকের এই আধুনিক সভ্যতা। ইতাহাস পর্যালোচনায় এতটুকু বোঝা যায় যে, এই সভ্যতা আরও তরান্বিত হতে পারত— হবেও, শুধু কিছুটা সময়ের অপেক্ষা— একটি অদৃশ্য খাঁচা ভেঙে দেওয়ার, যে খাঁচায় বন্দি করে রাখা হয়েছে আমাদের চিন্তাশক্তিকে। নিজেদের চাওয়া-পাওয়া ও ভোগ-বিলাসকে কেন্দ্র করে বিশেষ একটি শ্রেণী শ্রেণীবিভাজনকে টিকিয়ে রাখতে এই অদৃশ্য খাঁচা তৈরি করে তার সেবা করে যাচ্ছে। এমন কি তারা নিজেরাও যে নিজেদেরকে অনুরূপ একটি খাঁচায় বন্দি করে রেখেছে তাও তারা টের পায় না। অদম্য ক্ষুধা ও লোভ-লালসা দিয়ে তৈরি যে খাঁচা, যেখানে অর্জন মাত্রই শঙ্কা। আবার এদেরও কিছু সহযোগী রয়েছে, যাদের কেউ প্রত্যক্ষভাবে সহযোগিতা করছে একান্ত বাসনায়, আবার কেউ পরোক্ষভাবে। এই পরোক্ষ শ্রেণীর আবার পাওয়ার চাইতে না পাওয়ার ব্যঞ্জনাই বেশি; এরা অদৃশ্য এই খাঁচার অস্তিত্ব টের পেলেও অদূরদর্শিতা এবং দূর্বল ধারণ ক্ষমতার কারণে প্রচণ্ড রকম ভাবে আত্মসমর্পণ প্রবণ, এবং এদের সংখ্যাটাই বেশি—অন্তত আমাদের এই সময়টাতে।

প্রাকৃতিক রহস্য উন্মোচন করে আমাদের যাবতীয় প্রশ্নের উত্তর খুঁজে নিয়ে দিক নির্ধারণের জন্য এই অদৃশ্য খাঁচার ধ্বংস অনিবার্য। কারণ, মুক্ত চিন্তা ব্যতীত রহস্য উন্মোচন সম্ভব নয়। স্বল্প সময়ের এই জীবন বয়ে নিতে গিয়ে ভোগের মোহ আমাদের ভাবনায় যে খাঁচার জন্ম দিয়েছে, যে খাঁচা আমাদের চিন্তাশক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করছে সেই খাঁচা থেকে যতদিন নিজেকে মুক্ত করতে পারব না ততদিন স্বল্প এই সময় কখনোই মহাসময়ের দেখা পাওয়া যাবে না। আর এটা এমন নয় যে কেউ একজন এসে খাঁচা ভেঙে সবাইকে মুক্ত করে দিয়ে যাবে। এর একমাত্র উপায় সামগ্রিক উপলব্ধি। এই উপলব্ধি নিজের সময়ের, এই উপলব্ধি নিজের অবস্থানের, এই উপলব্ধি নিজের চরিত্র বিশ্লেষণের। যতদিন এই উপলব্ধি আমাদের আসবে না ততদিন খাঁচার রাজত্ব বহাল তবিয়তে চলবে। ‘খাঁচার কথা’ কবিতার বইটির প্রতিটি কবিতায় নানান ভাবে আমাদের সময়, অবস্থান এবং চরিত্রগুলোকে উপলব্ধির চেষ্টাই করা হয়েছে।

 

 

 

বিজ্ঞাপন
প্রিয় লেখক, ২০২১ গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত আপনার বইটি নিয়ে লিখুন ‘আমার বই’ বিভাগে। লেখা পাঠান আমাদের ইমেইলে। সঙ্গে আপনার এবং বইয়ের পরিচিতিমূলক তথ্য এবং ছবি। লেখা পাঠানোর মেইল : editor.sreebd@gmail.com

 

শেয়ার করুন

লেখক পরিচিতি

error: আপনার আবেদন গ্রহণযোগ্য নয় ।