শনিবার, অক্টোবর ৮

জন্মান্ধ জাদুকর ও অন্যান্য কবিতা : নিঝুম খান

0

জন্মান্ধ জাদুকর


ধূসর রণক্ষেত্রের প্রস্তুতিরত যোদ্ধা, শিয়রে যার প্রতারণার কুশলাদি ক্রমশ উদীয়মান। অতঃপর সমাপ্ত ইতিহাসের ঘৃণ্যতম সত্যের ধ্বংসস্তুপে, শাণিত শব্দক্ষরণ করবে এক জন্মান্ধ জাদুকর। যেন বৃদ্ধের মুমূর্ষু আয়ুর মতো ক্ষীণতর হয়ে আসছে সমকাল, যেন বোধের বারান্দায় রোদনরত শকুনেরা চিনে নেয় নিজস্ব আহার। চাইলেই অবলীলায় এসব দৃশ্যদর্পণে রাখা যায় মুখ ও মূর্চ্ছনার প্রতিবিম্ব।

শতাব্দীর এক জন্মান্ধ জাদুকর, কবি। অবিরাম ক্ষতই যার অমোঘ নিয়তি। আর শিরা-উপশিরায় কবিতার উৎক্ষিপ্ত হেমলক।


বিকলাঙ্গ


ব্যাগ হাতে হাঁটছি জনাকীর্ণ পথে। পথ আটকে দাঁড়াল ক’জন পুলিশ। তদন্তে বেরিয়ে এলো একটি মানুষের মগজ, দুটি চোখ ও একটি জিহ্বা। প্রথামাফিক আমাকে ধরে আনা হলো থানায়। যাচাই করে দেখা গেল— সে মগজ, চোখ ও জিহ্বা আমারই।

ওরা জানে কি না জানি না, পথে নামলে যথাসম্ভব অন্ধ, বোবা ও মূর্খ হতে হয়।


জাদুকর


আমাকে মনে রেখো, হে জাদুকর
উন্মুখ জনতা, মন্ত্র উচ্চারণ ও অবিরাম বিস্ময়ের পর
প্রণয়ীর খোঁপায় যে ফুল ফুটছে গোপন স্পর্শে
তার রন্ধ্রে ম্রিয়মাণ ফেনিল আকাশ।

জানি, বিকল্প শয্যায় আত্মবিসর্জন সহজ নয়
সহজ নয় অসুখের বুকে অস্পষ্ট চুম্বন।
তবু স্বভাববিরুদ্ধ এসব উচ্চারণে
অভ্যস্ত হতে হয় নিজেদের।

জাদুকর, তুমি বিচ্যুত আলোর জোনাক
পৃথিবীর অভয়ারণ্যে এক বিচলিত তারা
মনে রেখো, আমিও তাদেরই একজন
খুনির ছুরির কাছে বুক পেতে বসে থাকে যারা।


অবয়বহীন


জলের কণ্ঠ চিরে তবু আসে বেহুলার প্রেম
কে জানে অহর্নিশ, জন্মের আজন্ম ক্ষতি
শামুকের খোল চিরে ক্রমশ সন্ধ্যা নামে যেন
গুলির শব্দ শেষে নেমে আসে যুদ্ধবিরতি।

এ কেমন নিরালোক, এ কেমন বিষণ্নবোধ
উদাসী আঁধার বুকে কেউ কেউ মরে আছে কি না
অচক্ষু আমিও কি নির্বোধ পাখিদের মতো,
বাতাসে অভয় রাখি, অতঃপর বাতাস দেখি না?

পৃথিবীর স্ফুলিঙ্গে লিখেছি ক্ষুধার স্বরলিপি
রক্তে অশনিপাত, চোখে ছোঁয় স্পর্শক-সীমা
হাড়ের পাহাড় থেকে মিছিলে নেমেছে শবদেহ
পাঁজরে প্রস্ফুটিত দহনের আদিম দ্রাঘিমা।

জলের কণ্ঠ চিরে ফিরে যায় ভেলার বেহুলা
অদূরে পদধ্বনি মৃত্যুদূতের মতো ক্ষীণ
এ কোনো ভ্রান্তি নয়, পাপ নয়, কেবল বাসনা
মন ও মননে কেউ থেকে যাক অবয়বহীন।


ভুল অক্ষরে লেখা নাম


প্রস্তরে লেখা শিকারের ডাকনাম
নগরের বুকে অনাহূত যত ভয়
স্তম্ভিত চোখ অপলক দ্যাখে শুধু
শিশিরের কোলে সৃষ্টির বিস্ময়!

চিরপরিচিত কলহের মহামারি
শুষ্ক আদর মুছে দেয় আয়ুরেখা
মগ্ন আকাশ উড়ে যায় খোলা চিঠি
ভুল অক্ষরে আমাদের নাম লেখা।

নিশ্বাস যথা মৃত্যুর কাছাকাছি
বিজ্ঞাপনে আত্মাহুতির শোক
প্রেমের আবাদে সবটুকু আলোছায়া
নির্বিশেষে প্রিয় মানুষেরই হোক।

পথ ভেঙে রোজ মিছিলের ঢল হাঁটে
হিসেব হয়নি, কে আমার আমি কার
এখনও নিবিড় রাতের গভীরে কেউ
চাঁদ ক্ষীণ হলে জ্বালায় অন্ধকার।

শেয়ার করুন

লেখক পরিচিতি

জন্ম ২৩ সেপ্টেম্বর ২০০০, চাঁদপুর সদরের মমিন পাড়া রোডে। চাঁদপুর সরকারি কলেজ থেকে সমাজকর্মে স্নাতক। নিয়মিত লিখছেন বিভিন্ন লিটলম্যাগ, স্থানীয় ও জাতীয় দৈনিক পত্রিকায়। সম্পাদনা করেন ‘শেকড়’ নামে একটি ছোটকাগজ।

error: আপনার আবেদন গ্রহণযোগ্য নয় ।