রবিবার, মে ২৬

‘মান্দার ফুলের সখা’ প্রসঙ্গে

0

তখন ‘করোনা’ শব্দটা কেবলই আলোচিত হয়েছে। তখনও জীবন খুবই স্বাভাবিক। যুক্তরাজ্যে জীবনকে বয়ে নেবার, টিকে থাকার কঠিন লড়াই জারি আছে। কোনো কাজকেই ছোটো করে দেখি না। কিন্তু এমন এক পরিবেশে শ্রম-ঘাম দিয়ে টিকে থাকতে হচ্ছে যে, সেটা আমার কাছে অল্টারনেটিভ আরেকটা পৃথিবী আবিষ্কারের সমান ছিল। সকাল ১১টা থেকে দুপুর আড়াইটা একটা শিফট; আরেকটা সাড়ে পাঁচটা থেকে রাত সাড়ে ১১টা। শুক্র-শনি রাত ১২টা অব্দি। রাতে কাজ শেষে শরীর ক্লান্ত থাকে। খেয়েই ঘুমে ডুব। সকালের শিফট শেষে দুপুরের খাবারের পর যে ঘণ্টা দুয়েক সময়— কী করব? সঙ্গের সকলেই ঘুমায়। বা যারা জেগে থাকে, তাদের সঙ্গে কথা বলা বা আড্ডা দেবার মতন কিছু নাই। শ্রম বেচা আর ঘুমেই সময় পার করে দিলে তো মুশকিল! ভাবলাম, এই সময়টা লেখার কাজে ব্যয় করতে পারি।

মান্দার ফুলের সখা ।। রুহুল মাহফুজ জয় ।। প্রচ্ছদ: রাজীব দত্ত ।। প্রকাশক: ঢাকা প্রকাশ ।। প্রকাশকাল: মার্চ ২০২১।। মূল্য ১৩০ টাকা 

সেই ভাবনাতেই ১৯-এর ডিসেম্বরে লেখা শুরু করলাম। সারি কাউন্টির ব্যাগশট গ্রামে থার্টিন লন্ডন রোডের দোতলার জানালার সামনে বসে নানান চিন্তা করি, বাইরের দৃশ্যে অপার শূন্যতা দেখি আর লিখি। চতুর্দশপদী কেন? কোনো উদ্দেশ্যে নয়। হঠাৎ মনে হয়েছিল, একটু ছন্দচর্চা করি। তাহলে কোন ছন্দ? মন বলল পয়ারে একটা বই লেখো না কেন, রুহুল? এভাবেই ‘মান্দার ফুলের সখা’ পাণ্ডুলিপিটি লেখা শুরু হলো।

এরপর মার্চে লকডাউন শুরু হয়ে গেল। ততদিনে মহামারী দুনিয়া কাঁপিয়ে দিয়েছে। মানুষ মানুষ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে। এক ঘরে থেকেও যেন কত দূরে! নাক-মুখ ঢেকে বাইরে বের হতে হচ্ছে। বাইরে বেরোতেও নানারকম নিষেধাজ্ঞা। পৃথিবীর পথ-প্রান্তর শূন্য, ঠিক যেন থার্টিন লন্ডন রোডের জানালায় বসে থাকা আমারই মতো একা। কবিতায় এই বিষয়গুলি, ফেলে আসা স্বদেশ, স্বদেশের নানা স্মৃতি, ছোটোবেলা, বন্ধুত্ব-প্রেম সবই আক্রান্ত করতে লাগল। আর আমি ডায়েরির মতো করে পয়ারে তা লিখতে থাকলাম। ৫৬টি কবিতা লিখেছিলাম। তার মধ্যে থেকে ৪০টি বাছাই করে তিন ফর্মার পাণ্ডুলিপি প্রস্তুত করি। এই হলো আমার ‘মান্দার ফুলের সখা’।

বিজ্ঞাপন
প্রিয় লেখক, ২০২১ গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত আপনার বইটি নিয়ে লিখুন ‘আমার বই’ বিভাগে। লেখা পাঠান আমাদের ইমেইলে। সঙ্গে আপনার এবং বইয়ের পরিচিতিমূলক তথ্য এবং ছবি। লেখা পাঠানোর মেইল : editor.sreebd@gmail.com

শেয়ার করুন

লেখক পরিচিতি

জন্ম  ৩১ মার্চ, ১৯৮৪, ফুলবাড়ীয়া, ময়মনসিংহ। প্রকাশিত কবিতার বই : আত্মহত্যাপ্রবণ ক্ষুধাগুলো (২০১৬, ঐতিহ্য) কালো বরফের পিস্তল (২০১৮, জেব্রাক্রসিং) বিদ্যুতের প্রাথমিক ধারণা (২০১৯, তবুও প্রয়াস, ভারত), মান্দার ফুলের সখা (২০২১, ঢাকাপ্রকাশ)। প্রকাশিত গদ্যের বই : এ টু জেড বিশ্বকাপ (২০১৮, ঐতিহ্য)। সম্পাদিত গ্রন্থ : কূটালাপ (২০১৮, ঐতিহ্য)। এছাড়া কবি ফারাহ্ সাঈদের সঙ্গে তিনটি ব্রেইল বই সম্পাদনা করেছেন। শিল্প-সাহিত্যবিষয়ক ওয়েবজিন শিরিষের ডালপালা'র সম্পাদক।

error: আপনার আবেদন গ্রহণযোগ্য নয় ।